চট্টগ্রামের ৮ শিশুসাহিত্যিক সম্মানিত

শিশুসাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য চট্টগ্রামের ৮ শিশুসাহিত্যিককে সম্মানিত করেছে স্থানীয় বাংলাদেশ শিশুসাহিত্য একাডেমি। চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ শিশুসাহিত্য একাডেমি আয়োজিত তিনদিনব্যাপী ”শিশুসাহিত্য উৎসব ও ছোটদের বইমেলা”র সমাপনী দিন ২৯ সেপ্টেম্বর, শনিবার তাদের সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়।

পদকপ্রাপ্ত শিশুসাহিত্যিকরা হলেন দীপক বড়ুয়া, বিপুল বড়ুয়া, এমরান চৌধুরী, জসীম মেহবুব, মাহবুবুল হাসান, সৈয়দ খালেদুল আনোয়ার, উৎপল কান্তি বড়ুয়া ও অরুণ শীল।

পদকপ্রাপ্তদের হাতে একে একে পদক তুলে দেন চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী দৈনিক ‘আজাদী’র সম্পাদক এম এ মালেক। তার আগে প্রত্যেকের গলায় উত্তরীয়ও পরিয়ে দেওয়া হয়।

আয়েশা হক শিমু’র সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন ইঞ্জিনিয়ার পুলক কান্তি বড়ুয়া, কায়েস চৌধুরী, আনোয়ারা আলম, আনজীর লিটন, রাশেদ রউফ প্রমুখ।

পরে পুরস্কারপ্রাপ্তরা সংক্ষেপে নিজ নিজ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেন। কারো কারো প্রতিক্রিয়ার মধ্যে ছিলো কৌতুক ও কৌতুহল জাগার মতো কথা। যেমন মাহবুবুল হাসান যখন বলেন “আমার চুলদাড়ি কিছুটা পেকেছে বয়সে, কিছুটা পেকেছে বাতাসে”, তখন হলজুড়ে হাসির বন্যা বয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন, “আমি কাজ করেছি সাধারণ, তার জন্য পুরস্কার পেয়েছি অসাধারণ।”

সবশেষে বাজিমাত করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক। তাঁর সেন্স অব হিউমার এত সুক্ষ, সুন্দর ও সমৃদ্ধ যে, হলজুড়ে হাসির হল্লা বয়ে যায়। তিনি বলেন, “অনেকে মাইক পেলে অমাইক হতে চায় না, আমিও আজ সহজে মাইক ছাড়বো না।”

মাহবুবুল হাসানের বয়সে ও বাতাসে চুলদাড়ি পাকার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “অনেকের বয়স কম হলেও দাড়ি রাখার কারণে বয়স্ক লাগে। আমার যেহেতু দাড়ি নেই, তাই আমি কমবয়স্ক । তাছাড়া আমার মাথার মধ্যভাগে চুলও নেই। তার মানে এই – আমার মাথায় এখনো চুল গজায়নি। সেদিক থেকেও বোঝা যায় আমি এখনো ছোট আছি।”

এরপর সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি হয় তিনদিনব্যাপী আয়োজনের। স্বপ্নের ফেরিওয়ালাদের আগমনে প্রতিটি দিনই প্রাণের মেলায় পরিণত হয়েছিলো।
সূত্র: বিবার্তা২৪.কম।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: