বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়সী বিলিয়নিয়ার যে নারী

ফোর্বস পত্রিকার বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়সী বিলিয়নিয়ার হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন কাইলি জেনার। কার্দাশিয়ান পরিবারের সর্বকনিষ্ঠ এই সদস্য বিপুল পরিমাণ সম্পদ আয় করেছেন প্রসাধনীর ব্যবসা থেকে।

২১ বছর বয়সী এই তরুণী ‘কাইলি কসমেটিকস’ এর প্রতিষ্ঠাতা। তিনবছর আগে তৈরি করা এই প্রতিষ্ঠানটি গত বছরে আনুমানিক ৩৬০ মিলিয়ন ডলার মূল্যের প্রসাধন বিক্রি করেছে।

এর আগে ২৩ বছর বয়সে সর্বকনিষ্ঠ বিলিয়নিয়ার হয়েছিলেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ।

“আমি এরকম কিছু আশা করিনি। আমি ভবিষ্যৎ অনুমান করিনি। কিন্তু স্বীকৃতি পেয়ে ভালো লাগছে, মনে হচ্ছে কেউ উৎসাহ দিয়ে পিঠ চাপড়ে দিলো”, ফোর্বসকে বলেন মিজ. জেনার।

তালিকা অনুযায়ী, আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস এখনও বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। তার মোট সম্পদের পরিমাণ ১৩১ বিলিয়ন ডলার। ফোর্বসের হিসেব অনুযায়ী, ২০১৮ সালের চেয়ে তার সম্পদের পরিমাণ বেড়েছে ১৯ বিলিয়ন ডলার। তবে বেজোসের মোট মূল্য ৯.১ ট্রিলিয়ন থেকে ৮.৭ ট্রিলিয়নে নেমেছে।

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গের মোট সম্পদের পরিমাণও গত এক বছরে ৮.৭ বিলিয়ন ডলার কমে গেছে। গতবছর ব্যবহারকারীদের তথ্য ফাঁস সংশ্লিষ্ট কেলেঙ্কারির কারণে ফেসবুকের মূল্য প্রায় এক-তৃতীয়াংশ কমে যায়।

বিশ্বের সকল বিলিয়নিয়ারদের এই তালিকায় নারীর সংখ্যা মাত্র ২৫২ জন। স্ব-প্রতিষ্ঠিত নারীদের মধ্যে সবচেয়ে বিত্তবান চীনের ওউ ইয়াজুন, যার আনুমানিক মূল্য ৯.৪ বিলিয়ন ডলার। এবারই প্রথম স্ব-প্রতিষ্ঠিত বিলিয়নিয়ার নারীর সংখ্যা উন্নীত হয়েছে ৭২ জনে। গত বছর এই সংখ্যাটি ছিল ৫৬।

৮ই ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে কার কত সম্পদ আছে সে অনুযায়ী ফোর্বসের এই বিলিয়নিয়ারের তালিকাটি তৈরি করা হয়েছে। ঐ দিন সারাবিশ্বে মূদ্রার বিনিময় হার এবং স্টকের মূল্য বিচার করে করা হয় তালিকাটি।

ফোর্বস বলছে – ২০১৯’ বিশ্বে বিলিয়নিয়ারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২,১৫৩ জন, যেখানে ২০১৮ সালে সংখ্যাটি ছিল ২,২০৮।

বিলিয়নিয়ারদের গড় মূল্য ৪.১ বিলিয়ন ডলার থেকে নেমে ৪ বিলিয়ন ডলারে নেমেছে। ফোর্বসের মতে, এই বিলিয়নিয়ারদের ৯৯৪ জনের সম্পদের পরিমাণই আগের বছরের চেয়ে কমেছে। এই তালিকায় যুক্তরাজ্যের নাগরিক রয়েছেন ৫২ জন – যাদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন শ্রীচান্দ হিন্দুজা এবং গোপিচান্দ হিন্দুজা। বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান হিন্দুজা গ্রুপের কর্ণধার এই দুই ভাইয়ের মোট মূল্য ১৬.৯ বিলিয়ন ডলার।

ফোর্বস বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে বিলিয়নিয়ার রয়েছেন ৬০৭ জন, যা অন্য যে কোনো দেশের চেয়ে বেশি। এরপর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে চীন, যাদের বিলিয়নিয়ারের সংখ্যা ৩২৪ জন।

তবে চীনা বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় বড় ধরণের পরিবর্তন এসেছে। নতুন ৪৪ জন চীনা নাগরিক বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় যুক্ত হয়েছেন কিন্তু ১০২ জন তালিকা থেকে বাদও পরেছেন। ফোর্বসের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরে বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় থাকা ২৪৭ জন বিলিয়নিয়ার তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: