অস্ট্রেলীয় পর্নোতারকা মেডিসন বলেন…

বিশ্বব্যাপী ভয়ঙ্কর ব্যাধির মতো ছড়িয়ে পড়ছে পর্নোছবি। সাময়িক বিনোদনের উৎস হলেও, শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য তা মোটেও ভালো কিছু বয়ে আনে না বলে বিভিন্ন সময়ে জানিয়েছেন গবেষকরা। এ ব্যাপারে অস্ট্রেলীয় পর্নোতারকা মেডিসন মিসিনা বলেন, পর্নোছবি শুধু দর্শকদের জন্যই হানিকারক না, বরং তা এসব ছবিতে অংশ গ্রহণকারী অভিনেতাদের জন্য অস্বস্তির কারণ। আর ছবিতে যা দেখা যায় তার প্রায় সবটুকুই অবাস্তব। কারণ, ভালোবাসা ছাড়া শারীরিক সম্পর্ক করা খুবই যন্ত্রণাদায়ক। দুই শতাধিক পর্নোছবিতে অংশগ্রহণকারী মেডিসন সংবাদমাধ্যম নিউজ ডটকমকে বলেন, ক্যামেরার সামনে বিছানায় যাওয়া মোটেও সুখের কিছু নয়। আমরা শুটিং করার আগে অনেক বিষয়ে আলোচনা করি, যেন ক্যামেরায় সব ভালোভাবে ফুটে ওঠে।’ এছাড়া ছবির প্রয়োজনের অভিনেত্রীদের অস্বাভাবিক নানা অঙ্গভঙ্গি করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। এতে শরীরের বিভিন্ন অংশে যন্ত্রণার সৃষ্টি করে। তবে শুটিংয়ের মধ্যে বার বার বিরতি নেওয়াও বিরক্তিকর বলে জানান মেডিসন। তিনি বলেন, পুরুষ সঙ্গীদের কারণেই বার বার বিরতি নিতে হয়। তিনি বলেন, পর্নোছবির নায়কদের দেখে ঈর্ষান্বিত হওয়ার কিছুই নেই। সেগুলো একেবারেই প্রাকৃতিক নয়। কারণ ভায়াগ্রাসহ বিভিন্ন যৌনশক্তিবর্ধক ওষুধ নিয়ে তারা অভিনয়ে নামে। পর্নো ছবিতে কাজ করতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান বলে জানান মেডিসন। নিউজ ডটকম।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.