ট্রাম্প বললেন, ওরা সুখী হোক

আগামী ১৯ মে ব্রিটেনের ছোট রাজকুমার হ্যারির বিয়ে। কনে মার্কিন অভিনেত্রী মেগান ম্যারকেল। কনের দেশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের তো এ বিয়েতে সবার আগেই নেমন্তন্ন পাওয়ার কথা। কিন্তু সেরকম কিছু ওয়াশিংটন অবধি গিয়ে পৌঁছেনি।

এক সাক্ষাতকারে সে কথা স্বীকার করেও ট্রাম্প বলেন, আমি আন্তরিকভাবেই চাই ওরা সুখী হোক। আমি সত্যিই চাই। আর ওরা দু’জনকে মানিয়েছেও খুব।

উল্লেখ্য, ব্রিটেনের এ রাজকীয় বিয়েতে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে নিমন্ত্রণ জানানো নিয়ে বেশ কিছু ”জটিলতা” আছে। কেননা, প্রিন্স হ্যারির সাথে বন্ধুত্ব রয়েছে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা ও ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামার। তার চাইতেও বড় কথা, হবু রাজবধু মেগান ম্যারকেল আবার ট্রাম্পকে দু’চোখে দেখতে পারেন না। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে তিনি বলেছিলেন, এ লোকটি প্রেসিডেন্ট হলে আমি আর আমেরিকায়ই থাকবো না, কানাডা চলে যাবো।

সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী মেগান ম্যারকেলের ওই কথা ট্রাম্পকে মনে করিয়ে দিলে তিনি বলেন, এখনও আমি চাই, ওরা সুখী হোক।

সাক্ষাতকারে নিজের প্রয়াত মা প্রসঙ্গে ট্রাম্প বলেন, তিনি ১৯ বছর বয়সে আমেরিকা আসেন। এখানেই আমার বাবার সাথে পরিচয়, প্রণয় ও পরিণয়। সারাজীবন এখানে কাটালেও তিনি নিজ দেশের কথা ভুলে যাননি, প্রতি বছর স্কটল্যান্ডে বেড়াতে যেতেন। ব্রিটেন ও রানীকে খুবই ভালোবাসতেন তিনি।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন যে যদি প্যরিস জলবায়ু চুক্তিটি আরো উন্নত করা হয় তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এতে ফিরেও আসতে পারে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প স্বীকার করেন যে তিনি মাঝেমধ্যে বিছানায় শুয়ে শুয়েও টুইট করেন। সূত্র : ইয়াহু নিউজ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.