থমথমে কাশ্মীর, মৃত ২৩, কাশ্মীর তোপ পাকিস্তানের, জবাব দিল্লির

আজও থমথমে কাশ্মীর । গত তিনদিনের হিংসায় এপর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৩ জনের । উপক্যতাজুড়ে কার্ফু, নজরদারি সত্ত্বেও, বিক্ষিপ্ত হিংসার মাঝে আজও হয়েছে বিক্ষোভ । পরিস্থিতি নিয়ে সোনিয়া গান্ধী এবং ওমর আবদুল্লার সঙ্গে কথা বলেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সফর কাটছাঁট করে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।
উত্তপ্ত উপত্যকা
শনিবার থেকে একই পরিস্থিতি কাশ্মীরে। থমথমে উপত্যকার অধিকাংশ এলাকাতেই জারি কার্ফু। যান চলাচল বন্ধ। বন্ধ বাজার দোকান, বিভিন্ন দফতর, স্কুল কলেজ। চলছে নজরদারি, রয়েছে পুলিস পিকেট। তবুও থামেনি হিংসা। সোমবারও পথে নেমেছে বিক্ষোভকারীরা। তাদের এক নম্বর টার্গেট নিরাপত্তাবাহিনী। কোথাও ইটবৃষ্টি, কোথাও আবার সরাসরি থানা বা সেনা ক্যাম্পে হামলা। সোমবারও হামলা হয়েছে সোপোরের একটি থানায়। পুলওয়ামার বায়ুসেনার বিমানবন্দরে হামলা হয়েছে।
বুরহান ওয়ানির মৃত্যু অশান্তির আশঙ্কা ছিলই। কিন্তু অশান্তি থেকে এভাবে হিংসার আগুন জ্বলবে, তা সম্ভবত আন্দাজ করা যায়নি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সোমবার আরও আট কোম্পানি CRPF পাঠানো হয়েছে কাশ্মীরে। পরিস্থিতির জন্য বিচ্ছিন্নতাবাদীদেরই দায়ী করেছেন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা।
কাশ্মীর পুলিস আগেই অভিযোগ করেছে, বিক্ষোভের আড়ালে উপত্যকায় অস্থিরতা তৈরি করতে চাইছে জঙ্গিরা। শনিবার দামহাল এবং হাঞ্জিপুরা থানায় হামলার সময় অস্ত্র লুঠ করে বিক্ষোভকারীরা। সেই অস্ত্রের এখনও খোঁজ মেলেনি। উধাও ২১টি ইনসাস রাইফেল, ১২টি SLR, ২টি AK-47 রাইফেল, ১ টি LMG ম্যাগাজিন এবং ৫টি AK-47-এর ম্যাগাজিন
কাশ্মীর তোপ পাকিস্তানের,  জবাব দিল্লির
উপত্যকায় অস্থিরতার সুযোগ নিয়ে হাওয়া গরম করতে ছাড়েনি পাকিস্তান।  বুরহান ওয়ানির মৃত্যুতে দুঃখপ্রকাশ করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। নওয়াজ শরিফের দাবি, উপত্যকায় সাধারণ মানুষের ওপর অত্যাচার চলছে। চুপ নেই দিল্লি। ভারতের অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে পাকিস্তানের মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন। সাফ জানিয়ে দিয়েছে ভারত।

কাশ্মীর নিয়ে উদ্বিগ্ন কেন্দ্র এই ইস্যুতে বিরোধীদের পাশে চাইছে। সোমবার কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং নাশন্যাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লার সঙ্গে কথা বলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। এক বিবৃতিতে কংগ্রেস সভানেত্রী কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। যদিও তাঁর স্পষ্ট বার্তা জাতীয় নিরাপত্তার সংক্রান্ত কোনও বিষয়ে সমঝোতা সম্ভব নয়। সূত্র: জি নিউজ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.