দেশে হতাশাগ্রস্ত শিক্ষিত বেকার অর্ধকোটি

গোলাম মওলা।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণী বিদ্যা বিভাগ থেকে মার্স্টাসে প্রথম শ্রেণি পাওয়া গোলাম কিবরিয়া চাকরি খুঁজছেন ২০০৮ থেকে। কিন্তু আজও তিনি চাকরি পাননি। দীর্ঘ ৮ বছর ধরে লিখিত সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও ঘুষের টাকা না থাকায় আজও তিনি বেকার।পরীক্ষা আর ভাইভা দিতে দিতে এখন তার চোখে-মুখে চরম হতাশা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর করা মাসুদ রানা বাবুও চাকরি না পেয়ে ৩ বছর পাগলের মতো ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
কেবল গোলাম কিবরিয়া বা মাসুদ রানা বাবুই নয়, তাদের মতো সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চ শিক্ষা শেষ করে বেকারত্বের বোঝা মাথায় নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন প্রায় অর্ধকোটি শিক্ষিত বেকার।
সমাজ বিজ্ঞানীদের মতে, কাজের সুযোগ না পেয়ে অসংখ্য বেকার যুবক হতাশা থেকে বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছেন। এর ফলে সামাজিক অস্থিরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। হতাশা থেকে আত্মহননের পথও অনেকে বেছে নিচ্ছেন। একই কারণে নিকটাত্মীয়কে হত্যা করার মতো ঘটনাও এই সমাজে ঘটছে।
এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপিকা ড. মাসুদা এম রশিদ চৌধুরী বলেন, দেশে বেকারের সংখ্যা বাড়লে সামাজিক অস্থিরতাও বাড়বে। নতুন নতুন অপরাধ প্রবণতাও বাড়বে। শিক্ষিত যুবকদের অনেকেই হতাশা থেকে মাদকের সংস্পর্শে আসছেন। এই সুযোগে মাদক বাণিজ্যসহ অনেক বেআইনি কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে আয় রোজগারের পথ খুঁজছেন অনেকে।

দেশের সবচেয়ে বেশি কর্মসংস্থানের জোগানদাতা বেসরকারি খাত। অথচ এই খাতের অবস্থা গেল কয়েক বছর ধরেই ভাল যাচ্ছে না। বিনিয়োগ পরিবেশ ভাল না থাকার কারণে নতুন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে না, বরং অনেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে। এর ফলে বাড়ছে বেকারের সংখ্যা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে গত ৩ বছরে সারা দেশের ৬১৮ তৈরি পোশাক কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। এর বাইরে আরও ৩১৯ কারখানা বন্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। তিনি বলেন, এই সব কারখানা বন্ধ না হলে আরও কয়েক লাখ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ হতো।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারপ্রেস নেটওয়ার্ক, আইপিএনের এক গবেষণায় বলা হয়েছে,প্রতিবছর প্রায় ২৭ লাখ মানুষ শ্রমবাজারে আসে। কিন্তু সরকারি বা বেসরকারিভাবে কাজ পায় মাত্র ২ লাখ মানুষ। ফলে প্রতিবছর বিপুলসংখ্যক মানুষ বেকার থাকছে।

অন্যদিকে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) প্রকাশিত শ্রমশক্তি জরিপ-২০১৫ অনুযায়ী, গেল দুই বছরে মাত্র ৬ লাখ নতুন কর্মসংস্থান হয়েছে। অর্থাৎ বছরে গড়ে মাত্র ৩ লাখ মানুষ চাকরি বা কাজ পেয়েছেন। এর ফলে প্রতি বছর বেকার হচ্ছে প্রায় ২৪ লাখ মানুষ। সেই হিসাবে দুই বছরে দেশে বেকারের সংখ্যা বেড়েছে ৪৮ লাখ।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,প্রতিবছরই উচ্চশিক্ষা নিয়ে শ্রমবাজারে আসা শিক্ষার্থীদের প্রায় অর্ধেক বেকার থাকছেন অথবা যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরি পাচ্ছেন না। বর্তমান চাকরির বাজারে যোগ্যতা ও দক্ষতা খুবই কম। তাদের সনদ অনুযায়ী চাকরি মিলছে না।এ কারণে বেকারের সংখ্যা বাড়ছে।

ইউজিসির তথ্য মতে, জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়সহ ৩৭ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমবেশি ২৯ লাখ। এর বাইরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাড়ে তিন লাখের মতো। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৪ সালে ৩৪টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাস করেছে ৪ লাখ ১৯ হাজার ৫৮২ জন। ওই বছর ৭৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছে ৬৫ হাজার ৩৬০ জন। সব মিলিয়ে ২০১৪ সালে পাঁচ লাখ ৫০ হাজার ৩০২ জন স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাস করেছে। এর বাইরে পাশ করতে পারেনি বা ঝরে গেছে এমন শিক্ষার্থী সংখ্যা আরও বেশি। এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষা সম্পন্ন করেছে আরও কয়েক লাখ যুবক। কিন্তু এদের মধ্যে চাকরি হয়েছে হাতে গোনা কিছু যুবকের। একইভাবে প্রতি বছরই উচ্চশিক্ষা নিয়ে শ্রমবাজারে আসা শিক্ষার্থীদের প্রায় অর্ধেক বেকার থাকছেন, অথবা যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরি পাচ্ছেন না।

এ প্রসঙ্গে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, উচ্চ শিক্ষিতরা বেকার হওয়ার কারণে সমাজে এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। তিনি বলেন,বেসরকারি খাতে শ্রমিক ও কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন জনবলের দরকার হয় ৭০ শতাংশ। কিন্তু বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষিতদের ৯০ শতাংশই সাধারণ শিক্ষায় শিক্ষিত, যার সঙ্গে শিল্প-কারখানা ও ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনার সম্পর্ক থাকে না। এ কারণে বেকারের সংখ্যা বাড়ছে।

বেসরকারি খাতে ব্যাংকের চাকরি শিক্ষিত যুবকদের প্রধান আকর্ষণ হলেও গেল দুই বছর এই খাতেও চাকরির সুযোগ ছিল কম। এই খাতের সবচেয়ে বড় ব্যাংক ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। বিগত অন্যান্য বছর এই ব্যাংক ৭শ থেকে ১ হাজার জনবল নিয়োগ দিলেও গত দুই বছর ধরে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ বন্ধ রেখেছে। এর ফলে গেল দুই বছর এই ব্যাংকে চাকরির জন্য প্রবেশ করতে পারেনি অন্তত ২ হাজার যুবক। একইভাবে অন্যান্য বেশ কিছু ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান গেল দুই বছর নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ রেখেছে। এ ছাড়া সরকারি চাকরির অবস্থা মোটেও ভাল নয়, গত বছর সরকারের সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগ মিলিয়ে মোট ৫০ হাজার ৪৭৩ জনের চাকরি হয়েছে। সরকারের হিসাব অনুযায়ী, গত ৫ অর্থবছরে সরকারি খাতে কর্মকর্তা-কর্মচারী হিসেবে মোট নিয়োগ পেয়েছে ২ লাখ ৬৬ হাজার ২৭৫ জন।

বিশ্বখ্যাত ব্রিটিশ সাময়িকী ইকোনমিস্ট-এর ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) এক বিশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,বর্তমানে বাংলাদেশের ৪৭ শতাংশ স্নাতকই বেকার।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংগঠনের (আইএলও) ‘বিশ্ব কর্মসংস্থান ও সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি-২০১৫’ শীর্ষক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৪ সালে বাংলাদেশে বেকারত্ব বৃদ্ধির হার ৪.৩৩ শতাংশ। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০১৬ সাল শেষে মোট বেকার দ্বিগুণ হবে। সংস্থাটির মতে, বেকারত্ব বাড়ছে এমন ২০টি দেশের তালিকায় বাংলাদেশের স্থান ১২তম।

জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) তথ্য মতে, দেশে বেকার যুবকের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সংস্থাটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়,১৯৯০ থেকে ৯৫ সালে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী বেকার যুবকের সংখ্যা ছিল ২৯ লাখ। কিন্তু ২০০৫ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে তা প্রায় পাঁচ গুণ বেড়ে দাঁড়ায় এক কোটি ৩২ লাখে দাঁড়ায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.