বাংলাদেশে কাশ্মিরি শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে

আছিয়া নিশি।
নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রেস অ্যান্ড এডুকেশন মিনিস্টার এনামুল হক চৌধুরী বলেছেন, চিকিৎসাবিদ্যায় পড়তে বাংলাদেশে আগত কাশ্মিরি শিক্ষার্থীদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। রবিবার স্থানীয় একটি হোটেলে শ্রীনগর-ভিত্তিক পরামর্শ সেবা ‘শিক্ষা জোন’ আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

এনামুল হক চৌধুরী বলেন, প্রথমবার দেশে আসতে শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক সমর্থন প্রদানের পাশাপাশি সহজ ভিসা নবায়ন প্রক্রিয়া ও ই-ভিসার জন্য কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার।

তিনি বলেন, বর্তমানে ভিসা নবায়ন করতে ১০ থেকে ১৫ দিন সময় লাগে। আমরা এই প্রক্রিয়া আরো তরান্বিত করতে কাজ করে যাচ্ছি।

মন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে ১০ থেকে ১৫ জন কাশ্মিরি শিক্ষার্থী বাংলাদেশে এসেছিল। তবে গত বছর এ সংখ্যাটা ছিল চোখে পড়ার মতো। ওই বছর বিভিন্ন কোর্সে পড়তে প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী বাংলাদেশে আসে।

চৌধুরী বলেন, প্রথমবারের মতো যেসব শিক্ষার্থী বাংলাদেশে আসবেন তাদের সহায়তায় ঢাকায় একটি বেসরকারি সংস্থা খুব শিগগিরই কাজ শুরু করবে। ভারতীয় শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক সমর্থন দেয়াই হবে এ সংস্থার কাজ।
চৌধুরী বলেন, ঢাকায় অবস্থিত সংস্থাটি ওয়ান-স্টপ গন্তব্য সেবা চালু করবে। একজন শিক্ষার্থী ও তার পরিবার যখন ঢাকায় আসবে ওই সংস্থাটি তাদেরকে তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়ে যাবে এবং মুদ্রা বিনিময়সহ অন্যান্য কাজে সাহায্য করবে।

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেশে কাশ্মিরি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জম্মু-কাশ্মিরের এমএলসি খুরশিদ আলম। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, কাশ্মিরি শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার আঞ্চলিক সহযোগিতা দ্বারা উপকৃত হবে।

চৌধুরী বাংলাদেশের মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ভর্তি প্রক্রিয়ার ওপর আলোকপাত করেন। অনুষ্ঠানে তিনি বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রশ্নের উত্তর দেন।

বাংলাদেশের মেডিক্যাল কলেজগুলোতে এমবিবিএস, বিডিএস, এমএস ইত্যাদি কোর্সে ভর্তির তথ্য ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষেই এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছিল। সূত্র: গ্রেটার কাশ্মির

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.