বিপিএল – কে কার সমর্থক

মাঠ আর মাঠের বাইরে ক্রিকেটভক্ত জনতার উচ্ছ্বাসে প্রাণবন্ত চারপাশ। বাদ যাননি তারকারাও। জেনে নেয়া যাক, বিপিএল নিয়ে আগ্রহী এমন কয়েকজন ক্রিকেটভক্তের অনুভূতি—

 

সুযোগ খুঁজছি মাঠে গিয়ে খেলা দেখব

বাপ্পা মজুমদার, সংগীতশিল্পী

ক্রিকেট না খেললেও দেখতে ভালোবাসি। কিন্তু একটু চাপের মধ্যে থাকায় মাঠে গিয়ে এবার এখন পর্যন্ত খেলা দেখতে পারিনি। ইচ্ছা আছে দু-একদিনের মধ্যে যাব। যেহেতু আমার সব স্মৃতিজুড়ে ঢাকা শহর বিদ্যমান, সেহেতু অবশ্যই নিজের এলাকা ঢাকা ডিনামাইটসকে সমর্থন করব। আর পছন্দের খেলোয়াড় কে যে কোন দলে আছে, তাও ভালো করে জানি না। এজন্য বুঝতে পারছি না, দ্বিতীয় কোন দলকে ঢাকার পরই স্থান দেব। ছোটবেলা থেকেই মাঠে গিয়ে খেলা দেখি। তবে ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়ায় বহুদিন মাঠে বসে খেলা দেখতে দেখতে হইহুল্লোড় করা হয় না। এ আনন্দের যে কী উন্মাদনা, তা বলে বোঝানো যাবে না। মাঠে বসে খেলা দেখা আর টেলিভিশনের পর্দায় দেখার মধ্যে আকাশ-পাতাল পার্থক্য। তাই সুযোগ খুঁজছি মাঠে গিয়ে খেলার।

 

মন টানলেও মাঠে যেতে পারছি না

গিয়াসউদ্দিন সেলিম, নির্মাতা

নতুন চলচ্চিত্রের শুটিং নিয়ে প্রচণ্ড ব্যস্ত আছি। তাই মন টানলেও মাঠে যেতে পারছি না। আগেরবার যে উত্তেজনা নিয়ে খেলা দেখেছি, কাজের চাপ থাকায় এবার তা আর হয়ে উঠছে না। যেহেতু মাঠে বসে খেলা দেখতে পছন্দ করি সেহেতু সুযোগ পেলেই ছুট দেব। যদিও টিভিতে বিপিএলের দু-একটি ম্যাচ দেখেছি। আমার মনে হয়, টি২০তে বাংলাদেশের ছেলেরা যেভাবে পারফর্ম করছে, তা অনেক বেশি গর্বের। বিদেশী খেলোয়াড়দের চেয়ে আমাদের ছেলেরা ভালো খেলছে এটা প্রমাণও হচ্ছে এ টুর্নামেন্ট দিয়ে। একেকজন একেক দলে খেললেও সবাই আমার পছন্দের। তবে মাশরাফির কথা বলতেই হয়। কুমিল্লা এত শক্তিশালী না হওয়ার পরও যেভাবে ব্যাটিং করে দলকে জেতাল, তাতে মাশরাফির ভক্ত না হয়ে উপায় নেই!

 

সবার আনন্দ দেখেই আনন্দ লাগে

বিদ্যা সিনহা মীম, অভিনেত্রী

মাঠে গিয়ে খেলা দেখতে হবে, এমনটি কখনো মাথায় আসে না। কেননা শুটিং নিয়েই সবসময় ব্যস্ত থাকতে হয়। এবার বিপিএলের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে দুটো দল আমাকে প্রস্তাব দিয়েছিল; কিন্তু কিছু সমস্যা থাকার কারণে সেটা আর হয়ে ওঠেনি। যদি হতো, তাহলে মাঠে যেতাম, খেলা দেখতাম। যেহেতু তা হয়ে ওঠেনি, তাই সবাই যখন খেলা দেখে, তাদের আনন্দ দেখেই আমার আনন্দ লাগে। আরেকটি কথা হলো, ক্রিকেট অতটা বুঝি না। তবে যতটুকু বুঝি, তা দিয়ে আনন্দটুকু হয়ে যায়। সবচেয়ে মজা পাই, যখন বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা অন্য দেশের খেলোয়াড়দের চেয়ে ভালো খেলে। বিপিএলের এ জিনিসটাই আমার ভালো লাগে।

 

দুটি দলকে সমর্থন করতে হবে

ভাবনা, অভিনেত্রী

তৃতীয়বারের মতো বিপিএল উন্মাদনা শুরু হয়েছে, এটা দেখে খুবই উচ্ছ্বসিত। আরেকটু জমলে মাঠে যাব। যদিও গতবার বেশ কয়েকবার মাঠে গিয়েছিলাম। ভালো লাগছে যে, প্রিয় মানুষগুলো একেক দলে ভাগ হয়ে খেলছে। কাকে রেখে কাকে পছন্দ করব কিংবা কার দলকে সমর্থন করব, তা বাছাই করা আমার জন্য কষ্টকর। তার পরও একটি নয়, দুটি দলকে সমর্থন করতে হবে আমাকে। কারণ আমার দাদাবাড়ি রংপুর হওয়ায় রংপুর রাইডার্সকে সমর্থন করব। আর আমার মা যেহেতু পুরান ঢাকার মেয়ে, সেহেতু ঢাকাকেও সমর্থন করতে হবে আমাকে। আর খেলোয়াড়দের মধ্যে আমার অল টাইম ফেভারিট মাশরাফি। টানটান উত্তেজনা নিয়ে টিভিতে খেলা দেখেছি। আমার কাছে মনে হয়, বিপিএলের মতো টুর্নামেন্ট দিয়ে আমাদের ক্রিকেট অনেক দূর এগিয়ে নেয়া সম্ভব। বাইরে থেকে ক্রিকেটার, বিশ্লেষকরা আসেন, তাদের বরাতে আমাদের দেশের নামটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। ক্রিকেটের মাধ্যমে  দেশের এ পরিচিতি আমার ভালো লাগে।

 

টিভিতেই খেলা দেখছি

কনা, সংগীতশিল্পী

দুটি কারণে এবার আমি রংপুর রাইডার্সকে সমর্থন করছি। তা হলো প্রথমত. আমি এ দলটির জন্য একটি থিম সং করেছি। তাই তাকে সমর্থন করতে হচ্ছে। দ্বিতীয়ত. আমার সবচেয়ে প্রিয় খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান। তবে কুমিল্লার হয়ে খেলছেন মাশরাফি। তাকেও ভীষণ পছন্দ। এখন এ দুই খেলোয়াড় যখন একে অন্যের বিরুদ্ধে মাঠে নামে, সেটা দেখতে একটু কষ্ট লাগে। কিন্তু এটি যেহেতু খেলা, তাই আনন্দ নিয়েই দেখছি। এখনো মাঠে যেতে পারিনি, টিভিতেই পরিবারের সবার সঙ্গে খেলা দেখছি। এর আগে টি২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের জন্য গান গেয়েছিলাম। সেটার মজা অন্য রকম ছিল। এ পথ ধরে এবারো একটি দলের হয়ে গান গাওয়ায় টিভিতেই নিজের গান নিজে শুনছি। এর চেয়ে আর আনন্দের কী হতে পারে!

 

মাঠে গিয়ে খেলা দেখা হয়ে ওঠেনি

মারিয়া নূর, উপস্থাপক

বিপিএলের সবচেয়ে ভালো লাগার দিক হলো, আমাদের খেলোয়াড়ই নিজেদের প্রতিযোগী হয়ে খেলছে, এটা অন্য রকম ব্যাপার। মাশরাফি, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও আমার কাছে বলেছে, ‘আমরা সবাই সহকর্মী, আমরা সবাই বন্ধু। কিন্তু এই একটা জায়গায় এসে নিজেরা নিজেদের প্রতিযোগী হয়ে যাব।’ আমার কাছেও মনে হয়, যে যার ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স দিয়ে নিজেদের দলকে এগিয়ে নেবে। যদিও ব্যস্ততা থাকায় মাঠে গিয়ে খেলা দেখা হয়ে ওঠেনি।

 

গ্রন্থনা: রুবেল পারভেজ

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.