মহাকাশে হোটেল: দিনে ১৬ বার সূর্যোদয়-সূর্যাস্ত দেখা যাবে!

একটি বিলাসবহুল হোটেলে বসে আকাশের সৌন্দর্য দেখতে কার না ভালো লাগে? কিন্তু, বিষয় যদি এমন হয় আপনি পৃথিবীর সৌন্দর্য দেখছেন একটি বিলাসবহুল মহাকাশ হোটেলে বসে! তাহলে আসুন এক ঝলক দেখে নেই কেমন সেই হোটেলটি।

সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানায়, বিশ্বের প্রথম এই বিলাসবহুল মহাকাশ হোটেলে বসে ২৪ ঘণ্টায় দেখা যাবে ১৬ বার সূর্য উঠার দৃশ্য। সেই হোটেলের নাম ‘অরোরা স্টেশন’।

স্পেসডটকম জানায়, এই হোটেলটি পর্যটকদের জন্যে খুলে দেওয়া হবে ২০২১ সালে। তবে হোটেলটির ভেতরের কয়েকটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে গত ২৪ জানুয়ারি।

বিভিন্ন গণমাধ্যম থেকে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওরিয়ন স্পান তৈরি করছে এই হোটেলটি। দুজন ক্রু সদস্যসহ একসঙ্গে মোট ছয়জনের থাকার ব্যবস্থা থাকবে এই হোটেলটিতে। আর তাদের জন্যে থাকবে ১২ দিন মহাকাশ ভ্রমণের লোভনীয় ব্যবস্থা।

হোটেলটির উদ্বোধন ২০২১ সালে হলেও অতিথিদের আমন্ত্রণ জানানো হবে ২০২২ সাল থেকে।

অরিয়ন স্পান এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফ্রাঙ্ক বানগার এক বার্তায় গণমাধ্যমকে বলেন, “আমরা চাই সবাই যেনো মহাকাশ ভ্রমণের সুযোগ পান। উদ্বোধনের পরপরই আমরা এটিকে পর্যটকদের জন্যে খুলে দেওয়ার কথা ভেবে রেখেছি। এর জন্যে এতো কম টাকা নেওয়া হবে যা কেউই কল্পনাও করতে পারবেন না।”

হোটেল থেকে যা দেখবেন পর্যটকরা

মহাকাশে ১২ দিনের ভ্রমণে পর্যটকরা পৃথিবীটাকে দেখতে পাবেন ২০০ মাইল ওপর থেকে। লো আর্থ অরবিটে (এলইপি) অবস্থান করে তারা দেখবেন নীল গ্রহটিকে ঘিরে প্রতিনিয়ত ঘটে যাওয়া অবিশ্বাস্যসব দৃশ্য।

হোটেলে বসে পর্যটকরা প্রতি ৯০ মিনিটে একবার করে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করবেন। এর ফলে তারা প্রতি ২৪ ঘণ্টায় দেখবেন প্রায় ১৬ বার সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের দৃশ্য।

মহাশূন্যে ভেসে বেড়ানোর অদম্য বাসনাকেও পর্যটকরা মেটাতে পারবেন এই হোটেলে এসে। এছাড়াও, সেখানে বসে অতিথিরা ভিডিও চ্যাট করতে পারবেন পৃথিবীতে রেখে যাওয়া প্রিয়জনদের সঙ্গে।

দৈর্ঘ্যে ৩৫ ফুট আর প্রস্তে ১২ ফুট এই হোটেলটি দেখতে একটি ব্যক্তিগত উড়োজাহাজের মতো। এটি চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে পৃথিবীর ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায় সৃষ্টি হবে বলে মন্তব্য করেছেন অরিয়ন স্পান এর প্রতিষ্ঠাতা।

অরিয়ন স্পানের ভাবনা
২০০১ সালে মহাকাশ পর্যটন শুরু হওয়ার পর এটি বেশ ভালো সাড়া ফেলেছে ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে। তবে একেক জনের ক্ষেত্রে খরচটি একেক রকম হওয়ায় অরিয়ন স্পান ভাবছে ভিন্নভাবে।

বানগার তার বার্তাটিতে বলেন, “পর্যটকদের মহাকাশ ভ্রমণের জন্যে প্রস্তুত করতে ২৪ মাসের একটি প্রস্তুতি প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। কিন্তু, আমরা সেটি কমিয়ে তিনমাসে নিয়ে আসবো। ফলে খরচটাও কমে যাবে কয়েকগুণ।”

এছাড়াও, হোটেলটির বহুমুখী ব্যবহারের মাধ্যমে তিনি চেষ্টা করছেন পর্যটকদের ভ্রমণ খরচ আরও কমিয়ে আনার জন্যে। তবে ঠিক কতো খরচ হবে তা বার্তাটিতে উল্লেখ করা না হলেও ধারণা করা হচ্ছে তা জনপ্রতি ৮০ হাজার ডলারের মতো হতে পারে।

আগ্রহী হচ্ছে আরও প্রতিষ্ঠান
অরিয়ন স্পান এর এমন উদ্যোগ দেখে আগ্রহী হচ্ছে আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। এগুলোর একটি হচ্ছে অ্যাক্সিওম স্পেস। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস-ভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠানটি ২০২৪ সাল থেকে মহাকাশে পর্যটক নেওয়া শুরু করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। তবে ২০২০ সাল থেকেই তারা আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে পর্যটক নেওয়া শুরু করবে। আর নিজেদের স্টেশনে নেওয়া শুরু করবে ২০২৪ সাল থেকে।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.