‘মি টু’ ঝড় : যৌন হেনস্থা নিয়ে মুখ খুললেন ঐশ্বরিয়াও

যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে সরব হচ্ছেন বলিউডের একের পর এক অভিনেত্রী। ফলে ‘মি টু’ ঝড়ে ইতিমধ্যেই নাম জড়িয়েছে বলিউডের জনপ্রিয় প্রযোজক থেকে শুরু করে পরিচালক কিংবা অভিনেতার। নানা পাঠেকর থেকে শুরু করে বিকাশ বহেল, গণেশ আচার্য কিংবা অলোকনাথ বলিউডের একাধিক জনপ্রিয় মুখকে নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। আর এবার ‘মি টু ক্যাম্পেইন’ নিয়ে মুখ খুললেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন।

সম্প্রতি এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে বচ্চন পরিবারের বউ বলেন, বর্তমানে মহিলারা যেভাবে যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে মুখ খুলছেন, তাকে কুর্ণিশ জানাচ্ছেন তিনি। আপনি বিশ্বের যেকোনো প্রান্তেই থাকুন না কেন, যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে আপনার অভিযোগ সংবাদমাধ্যম এখন গুরুত্ব দিয়ে শুনতে শুরু করেছে। এবং সবার সামনে তা প্রকাশিত হচ্ছে। এটা অত্যন্ত ভালো পদক্ষেপ বলেও মনে করেন প্রাক্তন বিশ্বসুন্দরী।

ঐশ্বরিয়া আরো বলেন, মহিলাদের উপর হেনস্থার ঘটনা এই নতুন নয়। বহুকাল ধরে এসব চলে আসছে অহরহ। কিন্তু, মহিলারা যে এবার যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছেন, তা দেখে ভাল লাগছে বলে জানান ঐশ্বরিয়া রাই।

এদিকে সম্প্রতি সালমানের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। যেখনে সালমান খান-কে হাজির হতে দেখা যায়। সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাতকারে ঐশ্বরিয়া রাইয়ের সঙ্গে সালমান খানের বিচ্ছেদ এবং শারীরিক হেনস্থা নিয়ে ‘ভাইজান’-কে করা হয় প্রশ্ন। জিজ্ঞাসা করা হয়, ঐশ্বরিয়া যে অভিযোগ করছেন, তা কতটা সত্যি? যার উত্তরে প্রথমে হেসে ফেলেন সালমান খান। এরপর বলেন, তিনি যদি ঐশ্বরিয়ার গায়ে হাত তুলতেন, তাহলে তার সাবেক বান্ধবী শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে পারতেন না।

শুধু তাই নয়, এর আগে প্রভু চাওলা নামে এক সংবাদিকও তাকে এই একই প্রশ্ন করেছিলেন। যার উত্তরে সালমান বলেন, প্রভুর প্রশ্নে তিনি এত জোরে সামনে থাকা টেবিলের উপর আঘাত করেছিলেন যে প্রভু কেঁপে উঠেছিলেন। সেই উদাহরণ টেনে সালমান স্পষ্ট ইঙ্গিত দেন, তিনি যদি সত্যিই ঐশ্বরিয়ার গায়ে হাত তুলতেন, তাহলে ঐশ্বরিয়ার বেঁচে থাকা সম্ভব হতো না। সালমান খানের এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পরই হু হু করে তা ভাইরাল হয়ে যায়। ঐশ্বরিয়া সম্পর্কে সালমান কীভাবে এই ধরনের ‘নির্লজ্জ’ মন্তব্য করতে পারেন, তা নিয়েও উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

এদিকে সম্প্রতি নানা পাঠেকর এবং তনুশ্রী দত্তের বিতর্ক নিয়ে প্রশ্ন করা হয় সালমান খানকে। উত্তরে সালমান বলেন, তিনি বিষয়টি সঠিকভাবে জানেন না। তবে যদি এই ধরনের কোনো ঘটনা ঘটে থাকে, তা অনুচিত। ফলে আইন আইনের পথে চলবে বলেও মন্তব্য করেন সালমান খান।

আমিও যৌন হেনস্থার শিকার’‌
তনুশ্রী দত্তের হাত ধরে ফের নতুন করে শিরোনামে ‘‌মি টু’‌ আন্দোলন। এবার তনুশ্রীর মতোই যৌন নিগ্রহের অভিযোগ নিয়ে সরব হলেন আরেক বলিউড অভিনেত্রী আমিরা দস্তুর। আমিরার দাবি, পুরুষ ও মহিলা— উভয়ের হাতেই যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে তাকে। তবে নিগ্রহকারীদের নাম বলার মতো সাহস তিনি এখনো অর্জন করে উঠতে পারেননি।

২০১৩ সালে ‘‌ইশাক’‌ ছবির মাধ্যমে বলিউডে পা রেখেছিলেন আমিরা। পরে ‘‌মিস্টার এক্স’‌, ‘‌কালাকাঁদি’‌ এবং ‘‌কুং ফু যোগা’‌–র মতো ছবিতে দেখা গেছে তাকে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি তামিল ও তেলুগু ছবিতেও দেখা গিয়েছে তাকে।

আমিরা বলেন, ‘‌আমাকে কাস্টিং কাউচের সামনে পড়তে হয়নি। বলিউড হোক বা দক্ষিণ ভারতের ছবি— দুই ক্ষেত্রেই আমাকে যৌন নির্যাতনের সামনে পড়তে হয়েছে। যারা আমাকে হেনস্থা করেছে, তারা প্রত্যেকেই খুবই প্রভাবশালী। তাই আমি তাদের নাম করার সাহস সঞ্চয় করতে পারিনি। তবে একদিন না একদিন এদের নাম আমি সামনে আনবই।’‌ যৌন হেনস্থাকারীদের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় কর্মক্ষেত্রে তাকে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে বলে দাবি আমিরার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.