লন্ডনে পৌঁছেছেন খালেদা জিয়া

লন্ডনে পৌঁছেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বাংলাদেশ সময় ১২টা ৫০ মিনিটে হিথ্রো বিমানবন্দরে নামেন তিনি। এ সময় দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও বড় ছেলে তারেক রহমান তাকে বিমানন্দরে স্বাগত জানান।

এছাড়া যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক এম কয়ছর আহমদের নেতৃত্ব হাজার হাজার নেতাকর্মী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সংবর্ধনা জানান।

সেখানে পৌঁছার পর ছেলে তারেক রহমানকে জড়িয়ে ধরেন আবেগে আপ্লুত খালেদা জিয়া। এর পর নিজে গাড়ি চালিয়ে খালেদা জিয়াকে ভাড়া করা কটেজে নিয়ে যান তারেক রহমান।

ভিড় ও অনাকাঙ্ক্ষিত উপস্থিতি এড়াতে খালেদা জিয়ার অবস্থানস্থলের গোপনীয়তা রক্ষা করা হচ্ছে। লন্ডনের ওই কটেজে খালেদা জিয়ার সফরসঙ্গীসহ কয়েকজনের থাকার ব্যবস্থা রয়েছে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মামুন।

তিনি জানান, রবিবার যুক্তরাজ্য স্থানীয় সময় ভোর ৭টা ২০ মিনিটে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এমিরাত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট লন্ডনের হিথ্রো বিমান বন্দরে পৌঁছান। বিএনপি চেয়ারপারসনের সফর সঙ্গি হিসেবে রয়েছেন একান্ত সচিব এবিএম আব্দুস সাত্তার ও গৃহপরিচালিকা ফাতেমা বেগম।

চিকিৎসার উদ্দেশ্য হলেও খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানের মধ্যে দেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও বিএনপির সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে শলাপরামর্শ হবে বলে জানা গেছে।

সরকার বিরোধী আন্দোলনে কীভাবে সক্রিয় হওয়া যায় তা স্বাভাবিকভাবেই বিএনপির এ শীর্ষ দুই নেতার মধ্যে আলোচনা হবে বলে মনে করছেন দলটির নেতাকর্মীরা। রাজনৈতিক অঙ্গনেও তাদের এ আলোচনা নিয়ে রয়েছে বিশেষ আগ্রহ।

এদিকে জানা গেছে, লন্ডন সফরে পুরো সময়টা তার বড় ছেলে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বাসায় অবস্থান করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন। সফরে যুক্তরাজ্য বিএনপি, যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির সঙ্গে কয়েকটি অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন তিনি। এছাড়া বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে দু’একটি বৈঠকের সম্ভাবনাও রয়েছে।

 

কাঁদলেন খালেদা জিয়া-তারেক রহমান

চোখ ও পায়ের চিকিৎসা এবং পুত্র-নাতনীদের সাথে সময় কাটাতে লন্ডনে পৌঁছেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টার কিছু আগে তিনি লন্ডন গিয়ে পৌঁছান।

বিমানবন্দরে তাকে অভ্যর্থনা জানান লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতা।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, লন্ডনে খালেদা জিয়ার এক সফরসঙ্গী জানিয়েছেন, প্রায় ২ বছর পর লন্ডনে গেলেন খালেদা জিয়া। লন্ডনে পুরো সময়টা তিনি তারেক রহমানের বাসায় অবস্থান করবেন। রোববার বাসায় যাওয়ার পর পরই এক আবেগগণ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। তারেক রহমানসহ তার স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমান, মেয়ে জাইমা রহমান ছাড়াও প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শামিলা রহমান সিঁথি, তার দুই মেয়ে জাহিয়া রহমান ও জাফিয়া রহমান খালেদাকে কাছে পেয়ে অশ্রু ধরে রাখতে পারেননি। এসময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াও অশ্রুস্বজল হয়ে পড়েন বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

সর্বশেষ ২০১৫ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গিয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন। সেখানে বড় ছেলে তারেক রহমানসহ তার পরিবার এবং প্রয়াত ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী ও মেয়েদের নিয়ে ঈদ উদযাপন করেন তিনি। এর আগে ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্র ঘুরে দেশে ফেরার পথে বড় ছেলে তারেক রহমানকে দেখতে লন্ডনে গিয়েছিলেন খালেদা জিয়া।

এর আগে গতাকাল শনিবার সন্ধ্যার পর এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ই কে ৫৮৭ ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওনা হন বেগম খালেদা জিয়া।

যাত্রাপথে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে যাত্রাবিরতি করেন তিনি। স্থানীয় সময় রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে দুবাইয়ের টার্মিনাল থ্রি বিমানবন্দরে অবতরণ করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

এ সময় সংযুক্ত আরব আমিরাত বিএনপির সিনিয়র নেতারা বিমানবন্দরে উপস্থিত হন এবং বিএনপি নেত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ ও বিশ্রাম শেষে খালেদা জিয়া লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হন।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.