শুভ জন্মদিন হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী

কবি, ছড়াকার, সাংবাদিক হুমায়ুন সাদেক চৌধুরীর জন্ম চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বৈলছড়ি গ্রামে; ১৯৬০ সালের ৪ মার্চ।বাবা আলতাফ আহমেদ চৌধুরী ও মা আনোয়ারা বেগমের সাত সন্তানের মধ্যে তিনি চতুর্থ।  ছোটবেলা থেকে বইয়ের সঙ্গে সখ্য। সেই সূত্রে লেখালেখির জগতে। মূলত শিশুসাহিত্যই তার অঙ্গন, আরো নির্দিষ্ট করে বললে বলতে হয়, ছড়ার রাজ্যেই তার প্রধান পদচারণা। হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী পড়েন বেশি, লিখেন কম। ফলে তার প্রথম লেখা ১৯৭৬ সালে ছাপা হলেও প্রথম বই  কিশোরকবিতাগ্রন্থ এক কিশোরের মন প্রকাশ হয় তার দীর্ঘ তিন দশকেরও বেশি সময় পরে, ২০০৯ সালে । নিউজএন ভিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে হুমায়ুন সাদেক চৌধুরীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

তিনি ১৯৭৭ সালে বৈলছড়ি নাজমুন্নেসা হাই স্কুলের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি, ১৯৭৯ সালে বাঁশখালী ডিগ্রী কলেজের মানবিক বিভাগ থেকে এইচএসসি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগ থেকে ১৯৮৩ সালে অনার্স ও একই বিভাগ থেকে ১৯৮৫ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। ছাত্রজীবন শেষ করেই হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী গ্রামীণ ব্যাংকে পেশাগত জীবন শুরু করেন। তবে লেখালেখি প্রিয় এই মানুষটি বেশীদিন এই পেশা ধরে রাখতে পারেননি।

হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী ১৯৮৫ সালের শেষের দিকে রাঙ্গামাটি থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক সমতায় সহ-সম্পাদক পদে যোগদানের মধ্যদিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর কাজের ধারাবাহিকতায় ১৯৮৬ সালে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক নয়া বাংলায় সহ সম্পাদক, ১৯৯০ সালের মার্চে দৈনিক দিনকালে সহ-সম্পাদক, ১৯৯৭ সালে দৈনিক যায়যায়দিনে ফিচার ইনচার্জ, ১৯৯৮ সালে দৈনিক মানবজমিনে প্রধান সহ-সম্পাদক, ১৯৯৯ সালে ইউএনবি বাংলা সাভির্সে শিফট ইনচার্জ, ২০০০ সালে দৈনিক মাতৃভূমিতে যুগ্ম বার্তা সম্পাদক, ২০০১ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত দৈনিক বাংলাদেশ-এর ঢাকা অফিসে বার্তা সম্পাদক, একই সালের শেষের দিকে দৈনিক দিনকালে বার্তা সম্পাদক, ২০০৩ সালে দৈনিক আমার দেশ পত্রিকায় যুগ্ম বার্তা সম্পাদক, ২০০৬ সালে দৈনিক যায়যায়দিনে বার্তা সম্পাদক, ২০০৭ সালে দৈনিক নয়া দিগন্তে অতিরিক্ত বার্তা সম্পাদক ও ২০১১ সালে দৈনিক অর্থনীতি প্রতিদিনে বার্তা সম্পাদক পদে যোগ দেন।

বর্তমানে তিনি ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকতা করছেন।

শৈশব থেকেই হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী লেখালেখিতে যুক্ত। ১৯৭৬ সালে তার লেখা প্রথম পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তবে বই আকারে প্রকাশিত হয় ২০০৯ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায়। তার প্রকাশিত ২টি গ্রন্থ হল- কিশোর কবিতার বই ‘এক কিশোরের মন’ ও ২০১৪ সালে প্রকাশিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদনমূলক বই ‘অচেনা মানুষ অজানা কথা’।

সাংবাদিকতার পাশাপাশি সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে নিজেকে সম্পৃক্ত রাখতে ও নেতৃত্ব বিকাশের জন্য তিনি ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিল প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম একজন। তিনি এই সংগঠনে ২০০৫ ও ২০০৬ এই দুই কার্যবর্ষে পরপর সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন।

হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী ১৯৯৪ সালের ২০ মার্চ আফরোজা খানমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতির আবিদ শাহরিয়ার চৌধুরী ও মালিহা তাসনিম চৌধুরী ঐশী নামে দুই সন্তান রয়েছে। আবিদ চলতি বছর  এইসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে ও মেয়ে ঐশী প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

গুণী এই সাংবাদিক জানান, তার পছন্দের রং সবুজ ও ফুল গোলাপ। খেতে ভালোবাসেন বাঙালিয়ানায় তৈরি সকল খাবার। আর অবসর সময়ে এই সাংবাদিক বই পড়তে পছন্দ করেন।

জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন সম্পর্কে হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী  বলেন, ‘ছেলে-মেয়েদের কাছ থেকে চমক পেতে পারি।’

hsc01

এক কিশোরের মন

 

হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী পেশায় সাংবাদিক। শিশু-কিশোরদের জন্য তিনি দীর্ঘদিন ধরে লিখে আসছেন। শিশুমনের কল্পনাকে অনুভব করতে পারেন তিনি এবং তা সুন্দরভাবে তুলে আনেন নিজস্ব বৈশিষ্ট্যে। শিল্পী মোমিন উদ্দীন খালেদ অসংখ্য বইয়ের প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ শিল্পী। অঙ্কণে রংয়ের ব্যবহার শিশু-কিশোরদের সহজেই আকর্ষণ করে। এক কিশোরের মন কিশোর কবিতা সঙ্কলন হলেও যে কোনো বয়সের পাঠকরেই ভালো লাগবে। কবিতাগুলো পড়তে গিয়ে অন্য এক জগৎ ভেসে উঠবে। পড়া শেষ হয়ে গেলেও ছন্দের অনুরণন চলতে থাকবে মনের মাঝে।

 

 

মেঘ ছেড়েছে ঘর

জল ভর ভর মেঘ ছেড়েছে ঘর
মেঘ ছুঁয়েছে আকাশবাড়ি
ভিজলো জলে নীলের শাড়ি
বৃষ্টি ছুঁলো বনবনানী দিগন্ত প্রান্তর
মন ভর ভর মেঘ ছেড়েছে ঘর

হাওয়ায় চড়ে কোথায় যাবে মেঘ
ধানের চারা দেয় ইশারা
বৃষ্টি তাতে দেয় যে সাড়া
মেঘ ছোটালো তাই কি হাওয়ার বেগ

বাদলা দিনে কোথায় যাবে মেঘ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.