সফটওয়্যার খাতের প্রবৃদ্ধি কমছেই

প্রতি বছরে বড় ধরনের প্রণোদনা গ্রহণ করা সত্ত্বেও গত কয়েক বছরে বেসিসের নেতৃত্বে বাংলাদেশের সফটওয়্যার খাতের প্রবৃদ্ধি ক্রমশ কমেছে। সম্প্রতি, খোদ বেসিসের করা ২০১৫ সালের এক জরিপ দেখা যায়, ২০১০-১১ অর্থবছরের পর থেকে সফটওয়্যার খাতের প্রবৃদ্ধি কমছেই। ২০১২ সাল থেকেই সফটওয়্যার রফতানিতে ধীর গতি লক্ষ্য করা যায়। এমনকি সবচেয়ে হতাশাজনক বছর ছিল ২০১৪-১৫ অর্থবছর।

এ বিষয়ে বেসিসের বর্তমান সভাপতি শামীম আহসান বলেন, সফটওয়্যার প্রবৃদ্ধি নিয়ে আসলেও কিছু তথ্য সংকট আছে। আমাদের সদস্যরা সফটওয়্যার রফতানির পর যখন ব্যাংকে তাদের কাগজপত্র জমা দেন তখন সেখানে সফটওয়্যার নাকি ইনফরমেশন এনিয়ে বিস্তারিত না লেখায় বাৎসরিক হিসাবে তা উঠে আসেনি।
২০১৪ সালের শুরুতে সফটওয়্যার প্রস্তুত ও রফতানিকারকদের এই শীর্ষ সংগঠনটি এক জাঁকজমক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে দেশের সফটওয়্যার রফতানি আয় ২০১৮ সালের (পাঁচ বছরের) মধ্যে ১ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছানোর ঘোষণা দেয়। আড়াই বছর পরে সেই লক্ষ্যমাত্রার সাথে অর্জনের কোনো মিল নেই।
আর্থিক পরিমাণ হিসেব করলে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি। অর্থাৎ অর্ধেক সময়ে বেসিসের অর্জন হওয়ার কথা ছিল সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকারও বেশি। কিন্তু বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হিসাবে এই খাতে অর্জন হয়েছে আড়াই হাজার কোটি টাকার মত।
পরিসংখ্যানে দেখা যায়, সফটওয়্যার এবং কম্পিউটার ও প্রযুক্তি বিষয়ক সেবা রফতানির আয়ে ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) রফতানি আয় এসেছে ১০ কোটি ৭০ লাখ তিন হাজার মার্কিন ডলার। টাকার অংকে যা ৮০০ কোটি টাকার বেশি। যার প্রবৃদ্ধির হার ৯ দশমিক ০৭ শতাংশ।
২০১৪-১৫ অর্থবছরের ১১ মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ছয় দশমিক ২২ শতাংশ। এটি ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ছয় দশমিক ২২ শতাংশ বেশি। তখন প্রবৃদ্ধি ছয় শতাংশ হলেও লক্ষ্যমাত্রা থেকে এ খাতের আয় ছয় দশমিক ১২ শতাংশ পিছিয়ে ছিল। এ সময়ে আয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয় ১৩ কোটি ৩০ লাখ ডলার। ২০১২-১৩ শেষে আয় ছিল ১০ কোটি ১৬ লাখ ডলার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.