সে আমার ছোট বোন . . . . . .

বাবা মায়ের একমাত্র সন্তানকে অনেকেই বেশ হিংসা করেন। কারণ সব কিছু এমনকি বাবা মায়ের আদরটাও একাই ভোগ করা যায়। বাবা মায়ের একমাত্র সন্তানেরা কিন্তু এই কথা বলবেন না। তারা বরং উল্টোটাই বলেন। একলা থেকে কিছুই ভালো লাগে না। ভাইবোন থাকার মজা থেকে একেবারেই বঞ্চিত তারা। বিশেষ করে একটি ছোট বোন থাকলে তো কথাই নেই। অনেক বেশি আনন্দের দিন কাটে দুবোনে মিলে। এমন অনেক ধরনের বিষয় দেখবেন জীবনে যা অন্য কারো কাছ থেকে পাওয়া সম্ভব নয়। জানতে চান একজন ছোট বোন থাকার আনন্দগুলো? চলুন তবে জেনে নেয়া যাক।

আপনি কারো রোল মডেল, ভাবতেই ভালো লাগে: আপনার ছোট বোনের কাছে আপনিই অনুকরণ যোগ্য ব্যক্তি। সে আপনার অনেক কিছু অনুকরণ করে, এই বিষয়টি অনেক বেশি আনন্দের।

আপনি পরিবারের বড় একজন, সে অনুভূতিও অসাধারণ: যদি আপনার ছোট কেউ না থাকতো তাহলে কিন্তু আপনিই পরিবারের সবচেয়ে ছোট হতেন। ছোট ভাইয়েরাও কিন্তু বড় হয়ে বড় বড় ভাব ধরে, কিন্তু ছোট বোনেরা তা করে না। এই অনুভূতিটিও কিন্তু বেশ ভালো।

আপনার না বলা কথাগুলো ছোট্ট বোনটি না বুঝলেও তাকে বলতে পারেন: যে কথাগুলো পরিবার বা বন্ধুবান্ধবকে বলতে পারেন না সে কথাগুলো নিশ্চয়ই কাউকে না কাউকে বলা উচিত। ছোটবোন থাকলে কথাগুলো বলার জন্য মানুষ খোঁজা লাগে না। সে কিছু না বুঝলেও তাকে বলে মন হালকা করে নেয়া যায়।

আপনার সব বন্ধুআপনার ছোটবোনকে পছন্দ করেন: আপনার সব বন্ধুরা আপনার ছোট বোনকে অনেক পছন্দ করেন। তার কথা সব সময় জিজ্ঞেস করেন। এটিও কিন্তু এক্সট্রা একটি সুবিধা। আপনি কিন্তু বাড়তি মনোযোগ পাচ্ছেন আপনার বোনটির কারণে।

আপনাদের চোখে চোখে কথা বলার নিজস্ব কিছু ভাষা আছে: বোনেরা একসাথে থাকলে নিজেদের মধ্যে এক ধরনের ভাষার তৈরি হয় যা অন্য কারো বোঝার সাধ্য হয় না। মজার কিছু দেখলে চোখে চোখে কথা বলে নিজেরা আলাদা ধরনের আনন্দ নেয়া যায় শুধুমাত্র ছোটবোন থাকলেই।

ছোট বোনটির বাহানা দিতে পারেন বাইরে বেরোনোর সময়: বাইরে যেতে ইচ্ছে করছে, কিন্তু মা দিচ্ছেন না একা বাইরে যেতে। ছোটবোনকে দেখিয়ে অনায়েসেই বলা যায় ওকে পার্কে নিয়ে যাই বা ও আইসক্রিম খেতে চাচ্ছে।

আপনার ছেলেমানুষি কিছু না করার পেছনের কারণ ছোটবোনটি: অনেক সময় নিজের চোখের পানিও কিন্তু ধরে রাখা যায় ছোটবোনটির দিকে তাকিয়ে, কারণ সে আপনাকে দেখছে। অনেক ছেলেমানুষি কাজ করা থেকেও নিজেকে বিরত রাখতে পারবেন ছোট বোনের দিকে তাকিয়ে যে আপনি বড় হয়েছেন।

চোখের সামনে ছোট বোনটির বড় হওয়ার বিষয়টি কিন্তু মন্দ নয়: বড় বোন হিসেবে জন্ম থেকেই আপনি আপনার বোনটিকে দেখে আসছেন। তার সেই ছোট্ট বেলা থেকে আপনার সামনে বড় হয়ে যাওয়ার বিষয়টি কিন্তু বেশ মজার। তাকে অন্তত বলতে পারবেন ‘তোকে, আমি এই এক আঙুলের সমান দেখেছি’।

আপনার ব্যবহৃত জিনিস তার নতুন সঙ্গী: আপনার ব্যবহৃত ছোট হয়ে যাওয়া জিনিসগুলো সঙ্গী করে নিয়ে সে যখন আপনার সামনেই হাঁটাহাঁটি করে তখনও কিন্তু বেশ ভালোই লাগে।

আপনার উদ্ভট সব কর্মকাণ্ডের সাক্ষী সে: আপনার হযবরল কর্মকাণ্ড, সকল উদ্ভট ইচ্ছা এবং নানা ধরণের এক্সপেরিমেন্টের স্বীকার আর সাক্ষী যাই বলুন না কেন আপনার ছোট বোনটি। তার চুল ইচ্ছে মতো বাঁধা, তার উপর মেকআপ এক্সপেরিমেন্ট করা ইত্যাদি ছোট বোন না থাকলে করতে পারতেন না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.